শিরোনাম

কুয়াশার কেটে রোদের দেখা মিললো

ঊষার বাণী : ১০ ডিসেম্বর ২০২০
। নিউজ ডেস্ক ।

আকাশ কিছু দিন ধরে কুয়াশায় ঢেকে থাকছে। কুয়াশার কারণে বুধবার ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সূর্যের দেখা মেলেনি। বৃহস্পতিবার পুরোটা দিন জুড়েই রোদের খেলা থাকবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদফতর।

বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) আবহাওয়া অধিদফতরে এ তথ্য জানানো হয়।একদিন পিছু হটলেও কুয়াশার আধিপত্য সহসাই কমছে না। একই সঙ্গে দু-তিন দিন পর তাপমাত্রা কমে শীত আরও বাড়বে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। এটির বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্য-রাত থেকে দুপুর পর্যন্ত মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং বিকেল পর্যন্ত সারাদেশের কোথাও কোথাও তা অব্যাহত থাকতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে।

বৃহস্পতিবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে নওগাঁর বদলগাছী এবং কুড়িগ্রামের রাজারহাটে। এই দুটি স্থানে সকালে তাপমাত্রা ছিল ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিন আগে বুধবার সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল রাজারহাটে, ১২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃহস্পতিবার ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি এবং বুধবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২১ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেনের বলেন, উত্তর-পশ্চিম দিকে ভারত ও নেপালের এলাকা থেকে বাতাসের সঙ্গে এই কুয়াশা আমাদের এখানে আসে। শীতের বাতাসটা মূলত ওই এলাকা থেকেই আসে। এগুলো স্থানীয়ভাবে সৃষ্টি নয়। এটার একটা স্কেল থাকে— দুই দিন, চারদিন, সাতদিন এমন। তবে বাতাসের গতি যদি কম থাকলে, তবে কেটে যেতে সময় লাগে, আবার গতি বেশি থাকলে দ্রুত কেটে যায়।’

যদিও আজকের সকালটাও ছিল কুয়াশার চাদরে মোড়ানো। কিন্তু বেলা বাড়তেই কুয়াশা কেটে সূর্য দেখা যাচ্ছে। মেঘ-কুয়াশা ভেদ করে বেলা ১১টার মধ্যেই সূর্য তার অস্তিত্বের জানান দেয়। সারাদিনটা মোটামুটি এমনই থাকবে। তবে আগামী তিন-চারদিন কুয়াশা পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হবে না। সকালের দিকে রোদ উঠতে পারে আবার নাও উঠতে পারে।’

Ad Widget

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *